আমাদের দুঃখ কষ্ট ও সফলতার এক বছর

 খালেদ সাইফুল্লাহ ●

দীর্ঘ একটি বছর পার করে দ্বিতীয় বর্ষে পদার্পন করতে যাচ্ছে ফাস্ট বিডিনিউজ ২৪ ডটকম। আজ থেকে এক বছর পুর্বে এই দিনেই প্রকাশক, সম্পাদক, সাংবাদিক, কলামিস্ট সকলের হাত ধরে অজানা গন্তব্যের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেছিল একটি ছোট্ট অনলাইন পত্রিকা। কিন্তু আজ সে আর ছোট্ট পত্রিকা নেই। সুদীর্ঘ ১২ মাস অতিক্রম করেছে সে অতি নিপুনতার সাথে। একটি বছর, হ্যাঁ একটি বছর হয়ত সকলের কাছে ৩৬৫ দিনে হয়। অনেকের কাছেই তা কেটেছে দেখতে-দেখতে, হাসতে-খেলতে। কিন্তু ফাস্ট বিডিনিউজের কাছে তা মোটেও ৩৬৫ দিনের সমান ছিল না। সকলের অজানা অচেনা নিশ্চিহ্ন এক নাম ফাস্ট বিডিনিউজের আবির্ভাব , এরপর সকলের নিকট আত্নপ্রকাশ এসবই ঘটেছে এই এক বছরের মধ্যে। কথাটি হয়ত শুনতে সকলের কাছে অতি সামান্য ব্যাপার মনে হবে। কিন্তু এই সাধারন বিষয়টি যে আমাদের কাছে কত কঠিন ছিল তা একমাত্র আমরাই অনুধাবন করতে পেরেছি। আমাদের সামনে ছিল এক পর্বত পরিমান কাজের বোঝা। আমরা একের পর এক যতই কাজ শেষ করেছি, যতই সামনে এগিয়েছি কাজও যেন ততই আমাদের পিছু নিয়েছে তবুও আমরা কখনও বিচলিত হইনি। অনেক অনেকবার আমরা ব্যার্থ হয়েছি। তারপরও আমরা কখনো থেমে থাকিনি। সবসময়ই অব্যাহত ছিল আমাদের প্রচেষ্টা। ফাস্ট বিডিনিউজ তার নামেই শুধু ফাস্ট না, কাজেও ছিল ফাস্ট। তাইতো আমরা এক বছরে সত্যই এক অবিশ্বাস্য সফলতা অর্জন করেছি।

খুলনা বিভাগের ১০ টি জেলার ভিতরে আমরাই প্রথ্ম যশোর থেকে বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল অ্যাসোসিয়েশন (বনপা)‘র সদস্য পদ লাভ করেছি। এমনকি যশোরে আমরা বনপা জেলা কমিটি গঠন করেছি। এর পরপরই ফাস্ট বিডিনিউজের নেতৃত্বেই খুলনা বিভাগে যশোরে প্রথম অনলাইন প্রেসক্লাব গঠিত হয়েছে। এমনকি আমাদের নির্বাহী সম্পাদক বনপার সঃ সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। এটাও আমাদের সফলতা প্রমান করে। কারন এখন পর্যন্ত খুলনা বিভাগ হতে বনপার প্রেসিডেন্ট ব্যাতিত অন্য কেউ তার সমকক্ষতা অর্জন করতে পারেনি। তবে এ সফলতা এমনিতেই সম্ভব হয়নি। এর পেছনে ছিল ফাস্ট বিডিনিউজের সম্পাদক হতে শুরু করে লেখক, সাংবাদিক, কলামিস্ট এবং স্টাফের প্রত্যেক টি ব্যাক্তির অক্লান্ত্য পরিশ্রম। প্রত্যেকটি কাজই আমরা করেছি সকলে একমত পোষন করে। কেউ কখনো নিজেকে অন্যের থেকে বড় মনে করেনি। কথা বলার ক্ষেত্রে প্রত্যেকেরই ছিল সম-অধিকার। আমাদের এই একতা ,সমতা আর সহনশীলতা দিয়েই আমরা অসম্ভবকে সম্ভব করেছি। তাছাড়া আমাদের অধিকাংশ সাংবাদিক ই ছিল নতুন। তাদের যথেষ্ঠ অভিজ্ঞতার অভাব ছিল। তা সত্তেও তারা অতি নিপুনতার সাথে প্রতিটি কাজ সম্পাদন করেছে। আমাদের এমনও অনেক দিন পার করতে হয়েছে যে না খেয়েই বাসা থেকে বের হয়েছি ,সময়ের অভাবে দুপুরের খাবারটাও খাওয়া হয়নি। এভাবেই শুরু থেকে আমরা দুঃখ কষ্ট সহ্য করে যাচ্ছি। তারপর অনলাইন সাংবাদিক বলে অনেকেই অনেক সময়ে আমাদেরকে অবগ্যার চোখে দেখেছেন। অনেক ভাবেই আমাদেরকে নিচু করার চেষ্টা করেছেন। আজ এক বছর পর আমরা তাদের কথার যথপযুক্ত জবাব দেওয়ার সামর্থ অর্জন করেছি। হয়ত তাদের উচিত জবাব দেওয়ার জন্যই আমরা খুব দ্রুতই নিবন্ধনের সযোগ পাই এবং কঠোর পরিশ্রম করে আমরা আমাদের যাবতীয় প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম সুন্দরভাবে শেষ করেছি। এখন শুধুই অপেক্ষা। এরপর থেকে আমরা দেশবাসীর জন্য, আমাদের পাঠকদের জন্য স্বাধীনভাবে লিখতে পারব। তবে যাই হোক আমাদের এই সফলতার পেছনে রয়েছে আমাদের উপদেষ্টামন্ডলির পরামর্শ, সম্পাদকমন্ডলি, সাংবাদিকসহ ফাস্ট বিডিনিউজ পরিবারের সকলের অবদান। তবে যাদের জন্য আমাদের এতদূর আগানো সেই পাঠকের চাওয়া পাওয়ার দিকেই আমরা এতদিন খেয়াল রাখতে পারিনি। তবে আমরা এ ব্যাপারে আশাবাদী যে এখন থেকে আমরা শুধুই পাঠকদের জন্য তাদের চাহিদা অনুসারে কাজ করব। এজন্য আমরা আমাদের পাঠক সহ সমগ্র দেশবাসীর নিকট সাহায্যপ্রার্থী।

লেখক ● স্টাফ করেসপন্ডেন্ট , ফাস্ট বিডিনিউজ ২৪ ।