ঈদে নতুন পোশাক দিতে না পারায় গৃহবধূসহ সন্তান হত্যা

হত্যা
ছবি- সংগৃহীত

মাহাবুবুর রহমান 🔘 যশোরের শার্শা উপজেলার দীঘা গ্রামে নতুন ঈদের পোষাক কিনে দিতে না পারায় দু’শিশু সন্তানকে বিষ খাইয়ে হত্যা করে নিজেও আত্মহুতি দিলেন এক অসহায় মা। হৃদয়বিদারক এ ঘটনাটি ঘটেছে রোববার রাত ১২ টার দিকে যশোরের শার্শা উপজেলার চালিতা বাড়ীয়া দীঘা গ্রামে। মৃত সকলেই ঐ এলাকার হতদরিদ্র চা- দোকানি ইব্রাহীমের স্ত্রী ও সন্তান।

অভাবের তাড়নায় সন্তানদেরকে নতুন ঈদের জামাকাপড় কিনে দিতে না পারায় ইব্রাহীমের স্ত্রী হামিদা খাতুন (৩৫) প্রথমে তার স্কুল পড়ুয়া কন্যা শরিফা খাতুন (১১) ও সোহান হোসেন (৪) কে খাবারের সাথে কীটনাশক (বিষ ট্যাবলেট) খাইয়ে নির্মমভাবে মৃত্যু নিশ্চিত করে। এরপর নিজেও ঐ কীটনাশক বিষ ট্যাবলেট খেয়ে আত্নহত্যা করেন।

পারিবারিক ও এলাকাবাসী  সূত্র থেকে জানা যায়, দারিদ্রতার নির্মম কষাঘাতে জর্জরিত পরিবারে নুন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থা থাকে বছরের প্রায় সারাটা সময়। ফলে সবসময় পরিবারে ঝগড়া-ঝামেলা লেগেই থাকত। এমন অবস্থায় সামনে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরে সন্তানদেরকে নতুন ঈদের জামা কাপড় কেনাকাটাসহ সাংসারিক নানা অভাব অনটন নিয়ে রোববার রাত আনুমানিক সাড়ে ১১ টার দিকে হামিদা খাতুন ও তার স্বামীর মধ্যে তর্কাতর্কি হয়। ঝগড়ার একপর্যায়ে আর সহ্য করতে না পেরে স্ত্রী হামিদা খাতুন তার নিজ কন্যা শরিফা ও শিশু পুত্র সোহানকে বিষ ট্যাবলেট খাইয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে নিজেও একই ট্যাবলেট খেয়ে আত্নহত্যা করে।

শার্শা থানার ওসি মশিউর রহমান জানান, এটি আত্নহত্যা নাকি হত্যা তা ময়না তদন্ত রিপোর্ট ছাড়া বলা যাবে না। হত্যার বিষয়টি রহস্যজনক বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় পুলিশ ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে।

ফাস্ট বিডিনিউজ ২৪/এম আর/এআইএফ