সোনিয়া ইসলাম ●
এ যেন বই প্রেমীদের স্বর্গরাজ্য। এক চিলতে স্বস্তির ঠিকানা। বই প্রেমীরা সদলবলে কিংবা একাকি সময় কাটান চমৎকার সব বইয়ের সান্নিধ্যে। বই নিয়ে আড্ডার মধ্যেই মেলে চা-সিঙ্গাড়া। বই প্রেমীদের এমনই প্রিয় জায়গা ‘বেঙ্গল বই’।

দেশের প্রথম প্লাস্টিকের প্রক্রিয়াকরণ সংস্থা বেঙ্গল প্লাস্টিক লিমিটেড প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে ‘বেঙ্গল গ্রুপ’। যা বর্তমানে দেশের অন্যতম প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে অন্যতম। ‌‌বেঙ্গল গ্রুপে প্রতিনিয়ই যোগ করা হয় নতুন নতুন মাত্রা। তারই ধারাবাহিকতায় ২০১৭ সালের ১৪ নভেম্বর যুক্ত হয় ‘বেঙ্গল বুক’।

বেঙ্গল বইয়ের তিন তলা ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলাজুড়ে আছে দেশি-বিদেশি বই। নিচতলায় সব শ্রেণির পাঠকের জন্য আছে পুরনো বই ও ম্যাগাজিন। দোতলার বারান্দায় বসে কফি খেতে খেতে গল্প করা যাবে।

Bengal Boi 2
তিন তলা ভবনের পুরোটাই সাজানো হয়েছে দেশী-বিদেশী বিভিন্ন স্বনামধন্য লেখক ও প্রকাশনীর বই দ্বারা। এখানে আসলে আপনি পেয়ে যাবেন গল্প, উপন্যাস, কবিতা, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, খাবারদাবার, শিল্পকলা সাহিত্য, স্থাপত্য বিষয়ক বই সহ নানান রকম বইয়ের সমাহার ।

Bengal Boi 3তবে তৃতীয় তলাটা রাখা হয়েছে সম্পূর্ণ শিশুদের জন্য। যার নাম দেয়া হয়েছে ‘আকাশ কুসুম’। এখানে রয়েছে শিশুদের খেলার ছলে বই পড়ার সুবিধা, মাঝে মাঝে এখানে শিশুদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। শিশুদের পাঠ্য চর্চার পাশাপাশি পড়ালেখা সম্পর্কিত যাবতীয় শিক্ষা সামগ্রী বা উপকরণ সমূহ খুব সহজেই আপনি পেয়ে যাবেন হাতের নাগালে যা আপনি অন্য সব বিপণিবিতান সমূহের ঝামেলা কে এড়িয়ে স্বস্তির সাথে ক্রয় করতে পারেন । শিশুদের পাশাপাশি এখানে বড়দের জন্য রয়েছে নানামুখী আয়োজন। ‌বড়দের জন্য রয়েছে নিয়মিত পাঠচক্র, কবিতা পাঠের আসর, নতুন লেখা ও লেখক এর সঙ্গে পরিচিতিমূলক সভা, প্রকাশনা উৎসব, চিত্র চলচ্চিত্র প্রদর্শনী সহ প্রতিনিয়তই নানান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়ে থাকে । এখান থেকে আপনি বই ক্রয় এর পাশাপাশি যেকোনো বই বা ম্যাগাজিন নিয়ে যেতে পারেন, তবে সেক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই আপনার সংগ্রহে থাকা দুটি বই দিয়ে যেতে হবে । ‌‌ বই দেয়া নেয়ার চমৎকার প্রথা কে উৎসাহিত করতে তাদের এই প্রচেষ্টা ‌। পরিবেশকে আরো নান্দনিকতার ছোঁয়ায় সাজিয়ে তুলতে দেয়ালজুড়ে রাখা হয়েছে বিভিন্ন শিল্পীর শিল্পকর্ম। এখানে আরো রয়েছে শিল্পী ওয়াকিলুর রহমান এর একটি ভাস্কর্য। ‌

সুন্দর এ পরিবেশে পরিবার নিয়ে সময় কাটাতে এসেছেন চাকুরিজীবি শামিম আহসান। তিনি বলেন, ‘বাচ্চা নিয়ে আমি প্রায়ই আসি। কারণ এতে করে বাচ্চার বইয়ের প্রতি ভালোবাসা সৃষ্টি হবে। বেঙ্গল গ্রুপকে তাদের এই সেবামূলক কাজের উদ্যোগ গ্রহণের জন্য অবশ্যই শুভকামনা ও সাধুবাদ জানাই। এভাবে সবার মাঝে এক মনোরম পরিবেশের সৃষ্টির মাধ্যমে জ্ঞানের তৃষ্ণা ছড়িয়ে দিয়ে বই পড়ার প্রতি মানুষের যে অনীহাবোধ তাকে অভ্যাসে পরিণত করার প্রতি তাদের যে প্রয়াস ও সহায়ক ভূমিকা পালন করছে সেটাতে যেন তারা সফল হয়।’

Bengal Boi 1প্রতিদিন সকাল ৯ টা থেকে রাত সাড়ে ১০ পর্যন্ত যে কেউ ‘বেঙ্গল বই’-এ বই পড়তে পারবেন। তবে সে ক্ষেত্রে কোন ফি বা রেজিস্ট্রেশন করার ঝামেলা পোহাতে হবে না। সম্পূর্ণ ঝামেলাহীন ভাবে ও পূর্ণ স্বাধীনতা আপনার প্রিয় মুহূর্ত টুকু পার করতে পারেন এই ‘বেঙ্গল বুক’-এ ।

ঠিকানা: বেঙ্গল বই ১/৩ লালমাটিয়া , ব্লক – ডি, ঢাকা ১২০৯। যোগাযোগ: ০১৮৪৪০৫০৬৭৬।