• আজ সোমবার, ২৮শে মে, ২০১৮ ইং ; ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ ; ১২ই রমজান, ১৪৩৯ হিজরী
  • আমরা কেন অতিরিক্ত খেয়ে ফেলি?

    ফাস্ট বিডিনিউজ ২৪ ●

    fast food-eating

    আমরা তো অনেকেই স্বীকার করি, যে আমরা প্রয়োজনের তুলনায় বেশি খেয়ে ফেলি কখনো কখনো। এই সুযোগে একটা বিশাল ডায়েট ইন্ডাস্ট্রি তৈরি হয়ে গেছে যা কিনা মানুষকে বেশি বেশি করে ফল এবং বিভিন্ন সুপারফুড যেমন কিনোয়া, সালাদ ইত্যাদি খেতে উৎসাহ দেয়। আসলেই কী এটা কাজ করে?

    না, আমরা আসলে ব্যাপারটার মূলেই যেতে পারি না। আমরা যে অতিরিক্ত খাই, এর পেছনে আসলে খাবারটার তেমন কোনো অবদান নেই। আমরা বেশি খাই, কারণ আমরা যা চাচ্ছি সেটা পাচ্ছি না, আর তার অভাব পূরণ করার চেষ্টা করি খাবারে মাধ্যমে। আপাতদৃষ্টিতে মনে হতে পারে, আমরা যা চাই তার সবই তো হাতের কাছে আছে। যে কোনো সুপারশপে গেলে পাওয়া যায় চাহিদার সবকিছুই। বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন খাবার পাওয়া যায় রেস্টুরেন্টগুলোতে। কিন্তু আমরা কি সেটাই চাই?

    আপনি কি আপনার পিতার থেকে ক্ষমা প্রার্থনা করতে চান তাকে অবহেলা করার জন্য? অথবা আপনি চান তিনি অতীতে আপনাকে অবেহেলা করার জন্য আপনার কাছে ক্ষমা চাক?

    আপনি কি চান আপনার মায়ের ভালোবাসা আবার ফিরে পেতে?

    আপনি কি সেই পুরনো দিনগুলোর মতো বন্ধুদের সাথে বসে আড্ডা দিতে চান? তাদের উষ্ণ ভালোবাসা পেতে চান?

    হয়তোবা ভালোবাসা পেতে চান, একদম সত্যিকার ভালোবাসা! এমন কারো ভালোবাসা যে আপনাকে সত্যিই বোঝে, আপনাকে মূল্য দেয়?

    অন্যভাবে বলা যায়, আপনি আসলে খাবারের জন্য ক্ষুধার্ত নন। তাই এত সুন্দর সুন্দর রেস্টুরেন্টে গিয়েও আসলে আপনার লাভ হচ্ছে না। আমরা খাবার নিয়ে এত কথা বলি, কিন্তু আসলে খাবার ছাড়াও অনেক কিছুর জন্যই আমাদের মাঝে রয়েছে ক্ষুধা। না, পিজ্জা নয়, স্টেক নয়। আমাদের প্রয়োজন নিখাদ বন্ধুত্ব, যাতে আমরা দুশ্চিন্তা এবং অনিশ্চয়তাকে ভুলে যেতে পারি। আমরা পরিবারে থেকেও একাকী এবং ক্ষুব্ধ। আমাদের প্রয়োজন এমন সঙ্গী যে আমাদের আত্ম উন্নয়নে পাশে থাকবে। এগুলো পাই না বলেই আমরা স্ট্রেস ইটিং করি।

    জানেন তো, আমরা যখন মনের ভার কমানোর জন্য এক প্যাকেট পটেটো চিপসের দিকে হাত বাড়াই, দোষটা সেই খাবারের নয়। আমাদের মাঝে যে একটা শূন্যতা, এটাকেই আমরা ভরাট করতে চাই খাবার থেকে পাওয়া সাময়িক তৃপ্তি দিয়ে। আমরা অতিরিক্ত খাই, কারণ আমরা নিজেদেরকে যথেষ্ট ভালোবাসি না, নিজের শরীরের যত্ন নেবার জন্য যথেষ্ট মনোযোগ দেই না।

    আমাদের এই সুখের অভাবকে পণ্যে রূপান্তরিত করেছে বর্তমানের ডায়েট ইন্ডাস্ট্রি। আপনি যত রকমের ডায়েট নিয়েই পড়ে থাকুন না কেন, এর থেকে পাওয়া সুফল হবে ক্ষণস্থায়ী এবং ঠুনকো। তা আপনাকে বেশ সময়ের জন্য ফিট রাখতে পারবে না, কারণ আপনার মাঝে সুখের ক্ষুধা রয়েই যাবে।

    আপনি ভাবুন কয়েক শতাব্দী আগের কথা। তখন বেশিরভাগ মানুষই এত মুখরোচক খাবার খেতে পেত না। আমরা এখন অনেক সুস্বাদু খাবার পাই বটে, কিন্তু অন্যান্য দিক দিয়ে আমরা নিজেদের ক্ষুধা মেটানোর ব্যাপারে হয়ে পড়েছি উদাসীন। আমাদের কী দরকার? দরকার ভালো বোঝাপড়া, ক্ষমা, উদারতা, আন্তরিকতা। আমরা অতিরিক্ত খাই তার কারণ এই নয় যে আমরা লোভী, তার কারণ আমরা এমন পৃথিবীতে বাস করি যেখানে আমাদের প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো সুপার শপেও পাওয়া যায় না।

    ফাস্ট বিডিনিউজ ২৪/এ আই

    Close