• আজ সোমবার, ২৮শে মে, ২০১৮ ইং ; ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ ; ১২ই রমজান, ১৪৩৯ হিজরী
  • পাসপোর্ট বিড়ম্বনার শিকার মালয়েশিয়ার প্রবাসী বাংলাদেশীরা

    গাজী ইকবাল হুসাইন বেল্টু:15722678_1388176871193641_1753706367_n-1

    বুকভরা স্বপ্ন আর অনেক আশা বুকে বেঁধে নিজের স্বদেশ, জন্মভূমি, বাবা-মা, ভাই-বোন,পাড়া-প্রতিবেশী আর আত্মীয়-স্বজন সকলকে ফেলে রেখে অজানা- অচেনা শত-শত, হাজারও মাইল পাড়ি দিয়ে ভিন্ন সমাজ, সংস্কৃতি আর জীবন ধারার  কথা জেনেও রুটি- রুজি, ভাগ্যান্বেষণ আর অর্থ উপার্জনের জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রতি নিয়ত  ছুটে চলে বাংলাদেশের তরুণ- যুব সমাজ।

    বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রবাসীরা কঠোর পরিশ্রম,  রক্ত, ঘাম আর জীবনকে বিসর্জন দিয়ে উপার্জন করে চলেছে বৈদেশিক মুদ্রা আর সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনীতির ভিত্তিকে করছে মজবুত ও বেগবান। বিশ্ব অর্থনীতির চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় যারা বাংলাদেশের অর্থনীতিকে করে চলেছে শক্তিশালী তাদের জন্য বাংলাদেশ সরকার যে সকল পদক্ষেপের কথা ঘোষণ করেছিল তা অবশ্য প্রশংসার দাবী রাখে।

    পাসপোর্ট ও ইমিগ্রেশন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাসুদ রেজওয়ান বলেছিলেন, প্রবাসে থাকা বাংলাদেশীদের পাসপোর্টের মেয়াদ ফুরিয়ে গেলে ফেডারেল এক্সপ্রেসের মাধ্যমে বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে মাত্র  ৩ / ৫ দিনের মধ্য পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে পারবে। এটা ছিলো প্রবাসী বাংলাদেশীদের সময়ের দাবী। এই ঘোষণায় প্রবাসীরা অনেক উল্লসিত হয়ে ছিলো। কিন্তু মালয়েশিয়ার ক্ষেত্রে তা কতোটুকু বাস্তবায়িত হয়েছে তা প্রশ্নের দাবী রাখে।

    মালয়েশিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে ঘুরে তার সত্যতা পাওয়া যায়নি। যদি কেহ পাসপোর্ট করতে মালয়েশিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাসে যায় সঙ্গে সঙ্গে চলে আসবে ঝাঁকে ঝাঁকে দালাল। পাসপোর্ট সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসে থাকা দায়িত্ব প্রাপ্তদের তেমন সহযোগীতা পাওয়া যায়না। বাধ্য হয়ে দালালের সাথে যোগাযোগ করতে হয়। এই শতশত, হাজার হাজার বাঙ্গালিদের দালাল ধরা ছাড়া পাসপোর্ট করা কারও পক্ষে সম্ভব হয়না। প্রত্যেকের কাছ থেকে লুফে নেই টাকা।

    ব্যাংকে টাকা জমা দেয়ার জন্য রেট নির্ধানিত ১১৬ রিংগিত এক্ষেত্রে দালালগণ নিয়ে থাকে ১৫০ রিংগিত বা ২০০ রিংগিত কারও কাছে থেকে ২৫০ রিংগিত এমন কি কখনও দেখা যায় ৩০০/৪০০ রিংগিত নিয়ে থাকে। ( এক রিংগিত=১৮.৮৬ টাকা )। ব্যাংকে রিংগিত জমা দেয়ার পর কাগজ -পত্র নিয়ে হাজার হাজার মানুষের মথ্যে পুরা একটি দিন ধরে সিরিয়াল দিয়ে ফিঙ্গারপ্রিন্ট ও ছবি তোলার কাজ শেষ হয়।

    পাসপোর্ট উত্তোলন করার যে রশিদ টা দেয়া হয় তাতে ১৬/১৭ দিন পরের কথা উল্লেখ করা হয়ে থাকে। এবার ১৬/১৭ দিন পর পাসপোর্ট আনার জন্য গেলে আবারও ১৬/১৭ দিন পরে আসার জন্য বলা হয়। আবার পাসপোর্ট আনতে গেলে নতুন করে আর একটি সময় নির্ধারণ করে দেয়। এভাবে সময়ের পর সময় নির্ধারণ করতে থাকে । মালয়েশিয়া দূতাবাস থেকে পাসপোর্ট উত্তোলন করতে গেলে কমপক্ষে দু’মাসের নিচে পাসপোর্ট পাওয়া যায় না।

    এত কষ্ট ও পরিশ্রম করে নিজের জীবনের আরাম- আয়েশ, আনন্দ – হাসি ও সুখকে বিসর্জন দিয়ে যারা বছরের পর বছর ধরে দেশ ও জাতির জন্য নিবেদিত চিত্তে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে চলেছে প্রবাসে থাকা সেইসব মালয়েশিয়ার বাংলাদেশিরা এভাবে আর কত দিন এই সকল সমস্যা পোহাতেেই থাকবে ?

     

    লেখক:

    মালয়েশিয়া প্রবাসী বাংলাদেশি

    ফাস্ট বিডিনিউজ২৪/ কে এস

    Close