চলে গেলেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক

খ্যাতিমান আইনজীবী ও সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই।

শনিবার (২৪ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৮টায় রাজধানীর মগবাজারের আদ-দ্বীন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বেলা ২টায় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি প্রাঙ্গণে রফিক–উল হকের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

আদ-দ্বীন হাসপাতালের জনসংযোগ কর্মকর্তা তবিবুর রহমান আকাশ জানান, বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় ভুগছিলেন রফিক-উল হক। এ কারণে গত ১৫ অক্টোবর তাকে মগবাজারের আদ-দ্বীন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই সময় তার করোনা পরীক্ষা করা হয়। তবে রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। কিন্তু তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়। আজ সকালে মারা যান তিনি।

ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের জন্ম ১৯৩৫ সালে কলকাতার সুবর্ণপুর গ্রামে। ১৯৫৫ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক, ১৯৫৭ সালে দর্শন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি।

১৯৫৮ সালে এলএলবি পাস করেন রফিক-উল। ১৯৬২ সালে যুক্তরাজ্য থেকে বার এট ল’ সম্পন্ন করেন তিনি। ১৯৬৫ সালে সুপ্রিম কোর্টে এবং ১৯৭৩ সালে আপিল বিভাগে আইনজীবী হিসেবে কাজ শুরু করেন বিশিষ্ট এ নাগরিক।

১৯৯০ সালের ৭ এপ্রিল থেকে ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন রফিক-উল হক। বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারত, পাকিস্তান ও ব্রিটেনের নাগরিক হয়েছিলেন তিনি। সাবেক চার প্রধান বিচারপতি তার অধীনে চেম্বারে কাজ করেছেন। সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমিনুল হক ও সাবেক স্পিকার ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকারও তার সঙ্গে কাজ করেছেন। বিনা পয়সায় অনেকে মামলা লড়ে আলোচিত হয়েছিলেন রফিক-উল হক। স্পষ্ট ও সাবলীল আইনি যুক্তিতর্কের জন্য তার বিশেষ পরিচিতি ছিল।